ঢাকা, সোমবার ২৬ জুন ২০১৭  ,
১৯:১৬:২৫ ডিসেম্বর  ১৫, ২০১৬ - বিভাগ: সম্পাদকীয়


আমরা করবো জয়

Image

দেখতে দেখতে ৪৫টি বছর পার হয়ে এলো। যে বটমলেসস বাসকেটটি নিয়ে বঙ্গবন্ধু একটি রাষ্ট্রের সূচনা করেছিলেন, সে দেশ আজ ৪৫টি বছর পেরিয়ে এসেছে। সামাজিক নিরাপত্তাবোধ, সম-অধিকার, সমাজতন্ত্র, গণতন্ত্র ও স্বাধীনভাবে ধর্মাচার পালনের অঙ্গিকার নিয়ে কিশোর, যুবা ও প্রবীণ এক জনগোষ্ঠী যে ভূমিখন্ডটিকে স্বাধীন করবার যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল, আজ সে ভূমিখণ্ডটি পয়তাল্লিশ বছর পেরিয়ে এসেছে। সে ভূমিখণ্ডটি আজ ফল উৎপাদনে, মাছ উৎপাদনে অনেক এগিয়েছে। খাদ্য উৎপাদনে স্বয়ম্ভর হয়ে চাল রপ্তানীকারক দেশে পরিণত হয়েছে। বৈদেশিক মুদ্রায় অতীতের রেকর্ড ছাড়িয়ে প্রাচুর্য লাভ করেছে। দেশের বৃহৎ প্রকল্পের পদ্মা সেতু এখন নিজ অর্থায়নে তৈরি করা হচ্ছে। আজ রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে যে অর্জন আমরা লাভ করেছি তার জন্য মুক্তিযুদ্ধের শহীদ ও আজকের প্রবীণ মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি আমাদের লক্ষ কোটি সালাম। ত্রিশ লক্ষ সম্ভ্রমহারা মা-বোনদের প্রতি আমাদের অঞ্জলিভরা কৃতজ্ঞতা ও প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে যারা দেশকে মুক্ত করতে সহযোগিতা করেছেন, তাদের আজ আমরা আন্তরিকতার সাথে স্মরণ করছি।
স্বাধীনতা-পরবর্তী এ দিনগুলোতে সার্বভৌম বাংলাদেশের প্রাপ্তি অনেক। মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বেড়েছে। মানুষের জন্য অনেক বেশি কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে দেশের তরুণ সমাজ বিনামূল্যে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষার বই পাচ্ছে। দেশে এখন সর্বকালের রেকর্ড ভেঙে অনেক বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদিত হচ্ছে। বৈদেশিক মুদ্রা আয়ে আমরা অনেক এগিয়ে। দেশের মানুষের মাঝে সৃষ্টি হয়েছে অপার সম্ভবনা। এর পরও হত্যা, গুম, খুন চলছে সমাজে। এক শ্রেণির মানুষ আইনের তোয়াক্কা না করে দেশের সম্পদ বিদেশে পাচার করছে। আজো দেশের মানুষের মাঝে প্রাক-স্বাধীনতা সময়ের স্বপ্ন সম-অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়নি। আজো শোষণহীন সমাজ প্রতিষ্ঠিত হয়নি। এ অবস্থাটি কখনোই কারো কাম্য ছিল না। হাজার বছর ধরে এ ভূমিখণ্ডটিতে হিন্দু মুসলিমের পাশাপাশি আরো অনেক উপজাতি ও নৃগোষ্ঠী সমান অধিকারের ভিত্তিতে বসবাস করে আসছিল, আজ তারা উপেক্ষিত হয়ে বিপন্ন দিনযাপন করছে। রামু প্যাগোডার বৌদ্ধমূর্তি ভেঙে ফেলা হচ্ছে। সাঁওতাল নৃগোষ্ঠীকে অধিকারচ্যূত করা হচ্ছে। দেশে ধর্মের নামে জঙ্গিগোষ্ঠীর তৎপরতা সাধারণ জনজীবনকে করে তুলছে ভীতিপ্রদ।
আজ থেকে ৪৫ বছর আগে আমরা যে স্বাধীন ভূখণ্ড লাভ করি, সেখানে ভাষা-বর্ণ-জাতি-গোষ্ঠী নির্বিশেষে সকল মানুষের জন্য প্রতিষ্ঠা করতে হবে সম-অধিকারের ভিত্তিতে নাগরিক অধিকার। এ ভূমিতে হাজার বছর ধরে মানুষ যেমনভাবে ধর্মকর্ম স্বাধীনভাবে পালন করত, দেশের মানুষকে সে অধিকার ফিরিয়ে দিতে হবে। সরকারের উচিত, কঠোর হাতে দেশের সমস্ত জঙ্গি তৎপরতার মূলোচ্ছেদ করা। দেশে প্রাপ্ত সম্পদের সঠিক ব্যবহার করে দেশকে অর্থনীতিতে বলীয়ান করে বিশ্বের অন্যান্য উন্নত দেশের কাতারে বাংলাদেশকে এগিয়ে নেয়া। এ কাজ শুধু সরকারেরই নয়, দেশের জনগণেরও উচিত এ মানসিকতায় নিজেকে প্রস্তুত করে নেয়া।
আসুন আমরা ১৬ কোটি বাঙালি সেই স্বাধীনতার চেতনায় দীপ্ত হয়ে একটি উন্নত বাংলাদেশ গড়ার প্রতিজ্ঞা নেই। আমরা করবো জয়!


সম্পাদকীয়'র অন্যান্য খবর

©সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি