ঢাকা, শনিবার ২৯ এপ্রিল ২০১৭  ,
০০:৩১:৫৪ ফেব্রুয়ারি  ০১, ২০১৭ - বিভাগ: বিদ্যুৎ/জ্বালানি


মাতারবাড়ি বিদ্যুৎ প্রকল্পে ফিরেছে জাপান

নিজস্ব প্রতিবেদক

কক্সবাজারের মহেশখালীর মাতারবাড়িতে নির্মিতব্য ১ হাজার ২০০ মেগাওয়াট কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের মূল কাজে ফিরে এসেছে জাপান। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে সচিবালয়ে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সংবাদ সম্মেলনে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, প্রকল্পটির মূল নির্মাণ কাজের জন্য জাপানের দুটো প্রতিষ্ঠান দরপত্র জমা দিয়েছে। প্রতিষ্ঠান দুটি হলো- জাপানের মারুবিনি করপোরেশন ও সুমিতম করপোরেশন। নসরুল হামিদ বলেন, ২০১৬ সালের জুলাই মাসে গুলশানের হলি আর্টিজানে হামলায় জাপানি নাগরিকদের মৃত্যুর ঘটনায় জাপান এ প্রকল্প থেকে নিজেদের সরিয়ে নেয়। এর ফলে দরপত্রও বাতিল করা হয়। এখন সরকারের ইতিবাচক পদক্ষেপে তারা আবার ফিরে এসেছে। বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা আশা করছি নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই এ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কাজ শেষ হবে। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানিবিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী ও মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানিবিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহি বলেন, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সরকারের জিরো টলারেন্সের কারণে জাপানের এই ফিরে আসা। আমরা জাপানে গিয়ে তাদের কাছে আমাদের অবস্থান পরিষ্কার করেছি। তাদের এই ফিরে আসা বাংলাদেশ সরকারের জন্য একটি বড় অর্জন ও ইতিবাচক ঘটনা। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করছে। এটি অব্যাহত থাকবে। অনুষ্ঠানে জানানো হয়, দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় বাজেটের প্রকল্প নির্ভর এলাকা হতে যাচ্ছে কক্সবাজারের মহেশখালীর মাতারবাড়ি। এমনকি অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য সরকারের গৃহীত ও বাস্তবায়নাধীন এক্সক্লুসিভ ট্যুরিজম, ইপিজেড, মাতারবাড়ি কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র ও অর্থনৈতিক অঞ্চল হবে মাতারবাড়ি।
২০১৫ সালের আগস্টে মহেশখালীর মাতারবাড়ি এলাকায় ১ হাজার ২০০ মেগাওয়াট ক্ষমতার বিদ্যুৎকেন্দ্রটি নির্মাণে ৩৬ হাজার কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন করে সরকার। এটি হবে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ব্যয়ের প্রকল্প। এই প্রকল্পে ব্যবহারের জন্য প্রয়োজনীয় কয়লা আমদানি করা হবে। আমদানি করা কয়লা ওঠা-নামানোর জন্য বিদ্যুৎকেন্দ্রের সাথেই একটি গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণের বিষয়টিও প্রকল্পে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) অনুমোদন পাওয়া প্রকল্পের কার্যপত্রে বলা হয়েছে, জাপানের উন্নয়ন সংস্থা জাইকা এই প্রকল্পে ২৯ হাজার কোটি টাকা দেবে। এরই মধ্যে, মাতারবাড়ি প্রকল্পের জন্য জমি অধিগ্রহণ করেছে সরকার।


বিদ্যুৎ/জ্বালানি'র অন্যান্য খবর

©সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি