অটোপাসের সুযোগ নেই, পরীক্ষা নেবো: শিক্ষামন্ত্রী

0
18

নিজস্ব প্রতিবেদক :

অটোপাসের সুযোগ নেই উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, ‘পড়াশোনা ছাড়া কীভাবে অটোপাস দেবো? যদি স্কুল খুলতে দেরি হয়, তাহলে পরীক্ষা পরে নেবো। তাতে এমন কোনও মহাভারত অশুদ্ধ হবে না।’

বুধবার রাজধানীর একটি হোটেলে বাংলাদেশে কর্মরত ১৫টি শীর্ষস্থানীয় জাতীয় ও আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থার ‘নিরাপদ ইশকুলে ফিরি’ শীর্ষক ক্যাম্পেইন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘২০২১ সালে যারা এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষা দেবেন, সারা দিন মোবাইলে মেসেজ, হোয়াটসঅ্যাপে মেসেজ পাঠাচ্ছেন। অনেকেই হুমকি-টুমকি দিয়েও মেসেজ দেন। অটোপাস না দিলে এটা করে ফেলবো, সেটা করে ফেলবো।’

২০২০ সালের এইচএসসিতে মূল্যায়নের মাধ্যমে ফলাফলের প্রসঙ্গ তুলে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘২০২০ সালে যারা এইচএসসি পরীক্ষার্থী ছিলেন, তারা ভালো করে পড়াশোনা করেছেন। পুরোপুরি নিজেরা তৈরি হয়েছেন। ঠিক পরীক্ষার আগে পরীক্ষা স্থগিত হয়েছে, এতে ওদের কোনও দোষ নেই। তারা পরীক্ষায় তাদের মেধার পরিচয় দিতে পারতেন। তাদের আগের দুটো পরীক্ষায় তারা তা ঘটাতে পেরেছেন। সেটার ওপর ভিত্তি করে ফলাফল দেওয়া হয়েছে।’

অটোপাসের দাবির আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘এবার যাদের পরীক্ষার দেওয়ার কথা, আপনাদের সমীক্ষা অনুযায়ী তাদের অধিকাংশই ক্লাস করেননি। আমাদের সমীক্ষা অবশ্য ভিন্নরকম। সরকার আর এনজিওর তথ্যের মধ্যে অনেক সময় অনেক তফাৎ থাকে। কারণ, উদ্দেশ্যও ভিন্নরকম।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আমরা যদি আপনাদের (এনজিও) ধরে নিই যে অধিকাংশ শিক্ষার্থী অনলাইন ক্লাস থেকে তেমন কোনও সুবিধা পাননি। তাহলে পড়াশোনা ছাড়া কীভাবে অটোপাস দেবো বলেন? সেটার তো সুযোগ নেই। এখন সব পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করবে। আমরা কি ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি বা শেষ দিকে খোলার সুযোগ পাবো? নাকি মার্চ মাসে খোলার চেষ্টা করবো। আমরা স্বাস্থ্য ঝুঁকি নেবো না। যতক্ষণ স্বাস্থ্য ঝুঁকি থাকবে ততক্ষণ খুলবো না। যখন মনে করবো ঝুঁকিটা খুবই কম, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নিরাপদভাবে খোলা যায়, তখন খুলবো।’

তিনি আরও বলেন, ‘যদি মার্চের গোড়ায় খুলতে পারি, তাহলে আমরা একটি হিসাব করেছি, কতদিন পর এসএসসি পরীক্ষা নিলে তাদের শিক্ষাবর্ষ নষ্ট হবে না। বিঘ্নিত হবে না। তাহলে আমরা কতগুলো কার্যদিবস পাবো, ক্লাস পাবো, সেই হিসাবে, নতুন করে সিলেবাস প্রণয়ন করেছি। কোন কোন বিষয় শিক্ষার্থীর জানাটা অত্যাবশ্যক সেটা মাথায় রেখে এসএসসির জন্য ৬০ কর্মদিবসের সিলেবাস তৈরি করেছি। অনেক বিষয় আছে, আগের ক্লাসে পড়েছে এবং পরের ক্লাসে আবারও পড়বে, সেসব বিষয় মাথায় রেখে করেছি। এইচএসসির ক্ষেত্রে আমরা ৮৪ কার্যদিবস করেছি। যদি স্কুল খুলতে দেরি হয় তাহলে পরীক্ষা পরে নেবো। তাতে এমন কোনও মহাভারত অশুদ্ধ হবে না। তারপরও তাদের পরবর্তী যাওয়াটা সমস্যা হবে বলে আমরা মনে করছি না।’

অনুষ্ঠানে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক সোহেল আহমেদ, ইউনিসেফের উপ-প্রতিনিধি ভিরা মেন্ডোনকা, বাংলাদেশে কানাডা হাইকমিশনের হেড অব ডেভেলপমেন্ট অ্যাসিট্যান্স ফেদ্রা মুন মরিস বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে সেভ দ্য চিলড্রেন ইন বাংলাদেশ-এর পরিচালক (প্রোগ্রাম ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড কোয়ালিটি) রিফাত বিন সাত্তার এই ক্যাম্পেইনের পটভূমি এবং বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়ে আলোকপাত করেন। বিভিন্ন গবেষণার ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনা করেন ব্র্যাকের ঊর্ধ্বতন পরিচালক কেএএম মোরশেদ। ওয়ার্ল্ড ভিশনের পরিচালক টনি মাইকেল অনুষ্ঠানটি সমন্বয় ও সঞ্চালনা করেন।