উত্তর সিটি কর্পোরেশনের সব ওয়ার্ডে মিনি ফায়ার স্টেশন হবে: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী

0
1

নিজস্ব প্রতিবেদক :

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের সব ওয়ার্ডে একটি করে মিনি ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণ করা হবে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম ।

আজ রোববার সকালে ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত উইনি এসট্রাপ পিটারসন মন্ত্রীর সঙ্গে তার দপ্তরে সৌজন্য সাক্ষাতের পর তিনি সাংবাদিকদের একথা জানান।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, রাজধানীতে অনেক সরু রাস্তা আছে। এসব এলাকায় অগ্নীসংযোগের ঘটনায় ফায়ার সার্ভিসের বড় গাড়ি ঢুকতে পারেনা। আবার ফায়ার স্টেশনগুলো অনেক দুরে থাকায় আসতে অনেক সময় লেগে যায়। এতে দ্রুত অগ্নীনির্বাপন ও ক্ষয়ক্ষতি এড়ানো সম্ভব হয়না। তাই বিকল্প ব্যাবস্থা হিসেবে মিনি ফায়ার স্টেশন স্থাপন করার কর্ম-পরিকল্পনা হাতে নিচ্ছে সরকার। তিনি জানান, প্রাথমিকভাবে উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৩৬ টি ওয়ার্ডে ফায়ার সার্ভিস কার্যক্রম পরিচালনার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এই কার্যক্রমে যে লোকবল কাজ করবে তাদেরকে ডেনমার্ক ফ্রি প্রশিক্ষণ দেবে। আর মিনি স্টেশন নির্মাণের জন্য ডেনমার্কে ৮৫ শতাংশ অর্থায়ন করবে। মিনি ফায়ার সার্ভিস স্টেশন স্থাপনে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় এবং ডেনমার্কের মধ্যে এ সংক্রান্ত একটি সমঝোতা (এমইউ) স্বাক্ষর হয়েছে বলেও জানান তিনি।

পৌরসভা এবং ইউনিয়ন পরিষদ সংক্রান্ত এক প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী জানান, বাংলাদেশ একটি গণতান্ত্রিক দেশ। গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত এবং নির্বাচনের মাধ্যমে জনমানুষের আশ-আকাঙ্খার প্রতিফলন ঘটাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার সবসময় আন্তরিকভাবে কাজ করেছে। স্থানীয় সরকার নির্বাচন যথাসময়ে অনুষ্ঠিত হবে এবং তা সুষ্ঠু ও বিশ্বাসযোগ্য করতে সরকার বদ্ধপরিকর।

মো. তাজুল ইসলাম বলেন, বৈঠকে বাংলাদেশে বর্জ্য থেকে বিদ্যৎ উৎপাদনের বিষয়টি আলোচনায় উঠলে গ্রীন এনার্জী এবং বর্জ্যর ব্যধবস্থাপনায় ডেনমার্ক সরকারের বিনিয়োগের আগ্রহের কথা জানান রাষ্ট্রদূত।

মন্ত্রী সাংবাদিকদের জানান, বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য উত্তর সিটি কর্পোরেশনের একটি প্রকল্প ক্রয়সংক্রান্ত কমিটি অনুমোদন দিয়েছে। তিনি বলেন ঢাকা দক্ষিণ, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনে এসংক্রান্ত প্রকল্পের কাজ প্রক্রিয়াধীন আছে। পর্যায়ক্রমে চট্টগ্রাম, খুলনাসহ সব বিভাগীয় শহর এমনকি প্রত্যেক জেলায় বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ প্ল্যান্ট নির্মাণের পরিকল্পনা সরকারের আছে বলেও উল্লেখ করেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য বিদেশি কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি করা হবে। অনেক কোম্পানি চুক্তি করতে আগ্রহী। যে কোম্পানিই আসুক প্রতিযোগিতা করে আসতে হবে। জাতীয় স্বার্থ অক্ষুণ্ন রেখেই চুক্তি করা হবে।

সাক্ষাৎকালে সায়েদাবাদে ফেজ-৩ ওয়াটার স্লাপাই ট্রিটমেন্ট প্নান এবং পদ্মা যশোলদিয়া প্রকল্পের কার্যক্রম নিয়ে উভয়ে আলোচনা করেন। এই প্রকল্পে ডেনমার্ক অর্থায়ন করছে। ঢাকা ওয়াসার অধীনে এসব প্রকল্পে ডেনমার্ক আরো বিনিয়োগের আগ্রহ প্রকাশ করেছে। এসময় দুই দেশের বিভিন্ন স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়েও আলোচনা হয়।