টিকা নিতে আগ্রহী খালেদা জিয়া

0
1

নিজস্ব প্রতিবেদক
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া করোনাভাইরাসের টিকা নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। তবে কবে নাগাদ টিকা নেবেন তা এখনও জানাননি তিনি। বিএনপির একটি দায়িত্বশীল সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়ে কারাদ- হওয়ার পর থেকে কারাগারে ছিলেন খালেদা জিয়া। এরপর গত বছরের ২৫ মার্চ করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতিতে পরিবারের আবেদনের প্রেক্ষিতে তাকে শর্তসাপেক্ষ মুক্তি দেয় সরকার। ওই বছরের সেপ্টেম্বরে মুক্তির মেয়াদ শেষ হলে আবারও দ্বিতীয় দফায় মুক্তির মেয়াদ ছয় মাস বৃদ্ধি করে সরকার। আগামী ২৫ মার্চ তার দ্বিতীয় দফা মুক্তির সময়সীমা শেষ হবে। খালেদা জিয়া বর্তমানে তার গুলশানের ভাড়া বাড়ি ফিরোজাতেই আছেন। সেখানেই তার চিকিৎসা চলছে।
বিএনপির চেয়ারপারসনের কার্যালয়ের দায়িত্বশীলদের একটি সূত্র জানায়, করোনাভাইরাসের টিকা নিতে আগ্রহী খালেদা জিয়া। ইতোমধ্যে তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে আসা একাধিক দায়িত্বশীল ব্যক্তি জানান, বিএনপি চেয়ারপারসন টিকা নেবেন। কিন্তু কবে নেবেন, তা স্পষ্ট করেননি তারা।
সূত্রের দাবি, তৃতীয় দফায় শর্তসাপেক্ষ মুক্তির মেয়াদ বাড়াতে পরিবারের পক্ষ থেকে আবেদন করার প্রস্তুতি চলছে। পরিবার ও দলের উচ্চ পর্যায়ে আলোচনা চলছে দেশের বাইরে চিকিৎসা দেওয়ার বিষয়ে। ফলে, সরকারের পক্ষ থেকে বিদেশযাত্রার অনুমতি দেয়া হলে টিকা গ্রহণ করবেন খালেদা জিয়া। আর বিদেশযাত্রার বিষয়ে সিদ্ধান্ত না হলেও টিকা গ্রহণে কোনও বাধা হবে না বলেও জানান একাধিক সূত্র।
বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও খালেদা জিয়ার চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ম্যাডামের এখনও ভ্যাকসিন নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়নি। তিনি ফুলটাইম কোয়ারেন্টিন মেনটেইন করছেন, ফলে আরও একটু সময় গেলে তা হতে পারে। তার ভ্যাকসিন নেয়ার ব্যাপারে কোনও নেগিটিভিটি নেই। উনি পজিটিভ।’
বিএনপির উচ্চপর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে টিকা গ্রহণ নিয়ে দলের নেতাদের অবস্থান ছিল নেতিবাচক। কোনও কোনও নেতা টিকা নিয়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের নিধন করার অভিযোগও করেছিলেন। যদিও বিএনপির সিনিয়র কোনও কোনও নেতা ইতোমধ্যে টিকা নিয়েছেন। গত ৮ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মেডিক্যাল হাসপাতালে গিয়ে টিকা গ্রহণ করেন দলটির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন।