তাড়াশে ২নংবারুহাস ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ময়নুল হক

0
36

নিজস্ব প্রতিবেদক

সিরাজগঞ্জ জেলার তাড়াশ উপজেলায় আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ২নং বারুহাস ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী মোঃ ময়নুল হক। তিনি আওয়ামী লীগের ২নং বারুহাস ইউনিয়ন শাখার সভাপতি ও সিরাজগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক অর্থ বিষয়ক সম্পাদক ।

তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ,মাদক বিরোধী একজন ব্যক্তি যিনি সুখ, দুঃখ, হাসি, কান্নায় সকল মানুষের পাশে থেকে সবার মনে ভালোবাসায় অধিক সমাদৃত বংশগত দিক থেকে তার পূর্ব পুরুষ থেকে আজ অব্দি ১০০% আওয়ামী পরিবারের অধিকারী।

ছোট বেলা থেকে তিনি, দলের সঙ্গে জরিত। তিনি সিরাজগঞ্জ জেলা,ছাত্র লীগ, সফল অর্থ বিষয়ক সম্পাদক টানা পোস্ট পার করে বর্তমানে নির্বাচিত দুইবারের সভাপতি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বারুহাস ইউনিয়ন শাখার। আওয়ামী আদর্শকে বুকে লালন করে দলীয় আদর্শকে সমুন্নত রেখে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আসন্ন উপজেলার ২নং বারুহাস ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী। সমাজ পরিবর্তনের অঙ্গীকার নিয়ে এলাকাবাসীর মনের আশা পূরণে নৌকার মাঝি হতে চান তিনি।

নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে এলাকাবাসীর মাঝে ঐক্য আরও সুদৃঢ় হচ্ছে বলে জানা গেছে। মোঃ ময়নুল হক কে চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত করার জন্য চলছে ভোটারদের মাঝে চায়ের আড্ডায় ব্যাপক গুন্জন। ওই ইউনিয়নের সব শ্রেণীপেশার মানুষ একতাবদ্ধ হয়ে চালিয়ে যাচ্ছে নানা আলোচনা। এ ছাড়া স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা কর্মীরাও ময়নুল হকর পক্ষে মাঠে কাজ করছে।

বঙ্গবন্ধুর এই সৈনিক জানান, দল থেকে যদি আমাকে মনোনয়ন দেয় তবে আমি নৌকা প্রতিক নিয়ে নির্বাচনে জয় লাভ করে ২ নং বারুহাস ইউনিয়নকে বাংলাদেশের মধ্যে একটি মডেল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। রাজনীতির জন্য নিজের সুখ,শান্তি,আশা,আকাঙ্ক্ষা সব বিসর্জন দিয়ে আজও আমার প্রিয় সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের একজন কর্মী হিসেবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া প্রত্যেকটি আদেশ-নির্দেশ যথাযথ মর্যাদায় পালন করে যাচ্ছি। আমার দৃঢ় বিশ্বাস দলীয় হাইকমান্ড আমাকে অবশ্যই মূল্যায়ন করবে। আমি আপনাদের দোয়া ও সমর্থন প্রত্যাশী।

সাবেক ছাত্রনেতা ও সাবেক যুব নেতা বর্তমান আওয়ামী লীগের সভাপতি ২নং বারুহাস ইউনিয়ন শাখার নেতা ময়নুল হক বলেন, এবার ২নং বারুহাস ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আমি প্রার্থী হওয়ায় এলাকাবাসীর মাঝে ব্যাপক উদ্দীপনা বিরাজ করছে। আমি জনগনের সেবক হতে চাই, আমাকে চেয়ারম্যান হিসেবে মনোনয়ন দিতে এবং নির্বাচিত করতে এলাকার তরুণ প্রজন্ম, যুবসমাজ ও প্রবীণ ব্যক্তিরা মাঠে কাজ করছে। ২নং বারুহাস ইউনিয়নের সাধারণ জনগনের দাবি একটাই”পরিবর্তন”।

তাঁর জনসমর্থন অন্যসব প্রার্থীর তুলনায় বেশি দাবি করে তিনি বলেন, দল মনোনয়ন দিয়ে আমাকে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করার প্রত্যাশা পূরণের সুযোগ করে দেবে আশা করি।

তিনি জানান, আমি মানুষের যে ভালোবাসা ও সমর্থন পেয়েছি তা অভূতপূর্ব। দলের নেতা কর্মীরা তাকে উৎসাহ দিচ্ছেন। তিনি নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করার সুযোগ পেলে বিপুল ভোটে ভোটাররা তাকে বিজয়ী করবেন বলে বিশ্বাস করেন।

নির্বাচিত হলে ২ নং বারুহাস ইউনিয়নকে আধুনিক ও ডিজিটাল ইউনিয়নে পরিণত করা সহ বারুহাস ইউনিয়নকে উন্নয়নের রোল-মডেল হিসেবে পরিচিত করা এবং সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ, মাদকমুক্ত ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তোলার অঙ্গীকার করেন তিনি।তিনি বলেন মানব সেবা বড় ধর্ম।

বর্তমান ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল অধিবেশনে তৃণমূল নেতা-কর্মীদের সরাসরি ব্যালট ভোটের মাধ্যমে তিনি সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। বর্তমানে সে রাজনৈতিক কর্মকান্ডের পাশা পাশি সামাজিক বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করছেন।রাজনৈতিক অনুপ্রেরণায় এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবীত হয়ে ছাত্র জীবন থেকেই বাংলাদেশ ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হয়ে কলেজ শাখার গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। রাজনৈতিক আন্দোলন সংগ্রামে সর্বদাই প্রথম সারীতে থেকেছেন তিনি।

এবারের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তিনি দলীয় মনোনয়ন পেলে ইউনিয়নের তরুণ, শিক্ষিত, সচেতন ভোটাদের সাথে নিয়ে ইউনিয়নের গরীব, দুঃখী মেহনতী মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে কাজ করবেন বলে তিনি জানান । খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তাঁকে নৌকা প্রতীক দেওয়া হলে বিজয় সুনিশ্চিত বলে ধারণা করছেন তৃণমূল ভোটাররা। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী এ নেতার উপজেলা, জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে রয়েছে তার সু-সম্পর্ক। ইউনিয়নের দলীয় সকল নেতা-কর্মীদের সাথে নিয়ে দলীয় সকল কর্মসূচির মধ্যেও সক্রিয় অংশগ্রহণ ও দলীয় সকল কর্মসুচি সুস্থ ভাবে সম্পুর্ন করছেন তিনি।

২নং বারুহাস ইউনিয়নের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ময়নুল হক বলেন, আমি দলীয় মনোনয়ন পেলে জনগনের ভোটের মাধ্যমে ইনশআল্লাহ আমি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অঙ্গীকার গ্রামকে শহরে রূপান্তরিত করার প্রচেষ্টায় বাস্তবায়নে কাজ করবো । আমি কখনোই নিজের উন্নয়নে নয় ইউনিয়ন বাসীর উন্নয়নে কাজ করবো।

অতীত,বর্তমানে যেভাবে সকলের বিপদে ঝাপিয়ে পড়ে সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছি। ঠিক তেমনি ভাবে মানুষের পাশে থাকবো। সাধারণ মানুষের সম্ভাবনাময় স্বপ্নকে বাস্তবে রুপ দেয়ার জন্যই তৃণমূলের মানুষের দোয়া ও সমর্থন প্রত্যাশী।