বাঁশখালীতে কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে নিহত ৫, আহত ৫০

0
4

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

কর্তৃপক্ষের সঙ্গে দাবি-দাওয়ার জেড়ে চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র এস এস পাওয়ার প্ল্যান্টে শ্রমিক, পুলিশ ও এলাকাবাসীর সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে ৫ জন নিহত হয়েছেন। এছাড়া গুলিবিদ্ধসহ আহত হয়েছেন অন্তত ৫০ জন। আশঙ্কাজনক অবস্থায় ৬ জনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শনিবার সকাল ৮টার দিকে গন্ডামারার পাওয়ারপ্ল্যান্টের সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটে। এসময় পাওয়ারপ্ল্যান্টের ভেতরে শেডে ও গাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। এখনও ওই এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তবে নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

নিহতরা হলেন- গন্ডামারাই উনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের পুর্ব বড়ঘোনার গ্রামে মো: আবুছিদ্দিকের ছেলে আহমদ রেজা মীরহান (১৮), অলি উল্লার ছেলে রনি হোসেন (২২), নুরুজ্জামান ছেলে শুভ (২৪), দানু মিয়ার ছেলে মো. রাহাত (২২) ও নোয়াখালীর রায়হান (২৬)। বাঁশখালী স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা শফিউর রহমান মজুমদার নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানা যায়, গন্ডামারা ইউনিয়নের এস এস পাওয়ার প্ল্যান্টে শ্রমিকদের বেতন ভাতা ও দৈনিক ডিউটি নিয়ে গত কয়েকদিন ধরে কর্মরত শ্রমিক ও সুপারভাইজাদের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। বিরোধ নিয়ে গত শুক্রবার তর্কাতর্কি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। তারই জের ধরে শনিবার সকালে দু’পক্ষের শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। শ্রমিকদের মারামারি থামাতে গিয়ে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত হন তারা। এ সময় এলাকাবাসীও যোগ দেয়।

বাঁশখালী ফায়ার সার্ভিসের টিম লিডার লিটন বৈষ্ণব জানান, গন্ডামারা পাওয়ার প্ল্যান্টের অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। আগুন নেভানোর জন্য কাজ চলছে।

এ ব্যাপারে বাঁশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ শফিউল কবির বলেন, ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা চলছে।

চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেন গণমাধ্যমকে জানান, বাঁশখালী বিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিকদের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে চারজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

বাঁশখালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আজিজুল ইসলাম জানান, সকালে কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্রের মালিকপক্ষের সঙ্গে বেতনভাতা নিয়ে শ্রমিকদের ঝামেলা হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে গেলে সংঘর্ষ শুরু হয়।

এর আগে ২০১৬ সালের এপ্রিল মাসে চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার গণ্ডামারায় বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনকে কেন্দ্র সংঘর্ষে চারজন নিহতের ঘটনা ঘটেছিল। ওই সময় সংঘের্ষে পুলিশসহ কমপক্ষে ১৯ জন আহত হন।

বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে গ্রামবাসী পাল্টাপাল্টি সমাবেশ ডাকলে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এরপর পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে পুলিশের গাড়িবহর আটকে দেয় বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিরোধীপক্ষ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে পুলিশ আত্মরক্ষার্থে গুলি ছোড়ে।

ওই সময়ে বাঁশখালীর গন্ডামারায় পশ্চিম বড়ঘোনায় দেশি-বিদেশি যৌথ উদ্যোগে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের প্রতিবাদ জানিয়ে আসছিল স্থানীয়রা। ২০১৬ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি ১ হাজার ২২৪ মেগাওয়াট ক্ষমতার কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের জন্য এসএস পাওয়ার লিমিটেড ও বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের মধ্যে চুক্তি হওয়ার পর স্থানীয় লোকজনের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়।