ব্রাহ্মনবাড়িয়ায় নতুন গ্যাস ক্ষেত্রের সন্ধান

0
20

ব্রাহ্মনবাড়িয়ার নবীনগরে নতুন একটি গ্যাসক্ষেত্রের সন্ধান পেয়েছে বাপেক্স। নবীনগর উপজেলার লাউর ফতেহপুর ইউনিয়নের হাজীপুর গ্রামের নতুন এ কূপ কুমিল্লার শ্রীকাইল গ্যাস ফিল্ডে অন্তর্ভুক্ত। এ কূপ থেকে প্রতিদিন ১ কোটি ২০ লাখ ঘনফুট গ্যাস জাতীয় গ্রিডে যুক্ত করা যাবে বলে বাপেক্স কর্মকর্তারা আশা বলেছেন। মাটির নিচে প্রায় তিন হাজার ৮০ মিটার গভীরে গ্যাসের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার রাতে এই কূপ থেকে গ্যাসের সঙ্গে পানি ওঠা শুরু করে। তবে গতকাল বুধবার কূপ থেকে পানি ওঠা বন্ধ হলে গ্যাস পাওয়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয় বাপেক্স। কূপটি থেকে গ্যাস উত্তোলন করতে গ্যাসের পরিমাণ, গ্যাসের সাথে মিশ্রিত পানির পরিমাণ এবং গ্যাসের চাপ পরীক্ষা-নিরীক্ষার কাজ চলছে। আগামী পাঁচদিন এসব বিষয়ে বিভিন্ন পরীক্ষা চালিয়ে গ্যাস উত্তোলন শুরু করা হবে।

২০১৯ সালের ২৮ অক্টোবর নবীনগরের হাজীপুর গ্রামে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড প্রডাকশন কোম্পানি লিমিটেড (বাপেক্স) কূপ খননের কাজ শুরু করে। কূপ খননকাজ শেষ হয় গত ৩১ জানুয়ারি। ৩১ জানুয়ারি খনন শেষে বিভিন্ন ধরণের পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালানো হয়। গত মঙ্গলবার রাতে বাপেক্স গ্যাসের ব্যাপারে নিশ্চিত হয়। খনন অধিকর্তা মহসিনুল আলম জানান, প্রাথমিকভাবে কূপটিতে গ্যাসের ভালো চাপ পাওয়া যাচ্ছে।

বাপেক্সের ডিএস (অপারেশন) নজরুল ইসলাম জানান,এই গ্যাস জাতীয় গ্রিডে যুক্ত করার জন্য কূপ থেকে গ্যাস পাইপলাইনের মাধ্যমে ১০ কিলোমিটার দূরের শ্রীকাইলে কমপ্রেসার স্টেশনে নিতে হবে। সেজন্যে ১০ কিলোমিটার পাইপলাইন বসাতে হবে। সেখানে এই গ্যাস পরিশোধন করা হবে। পরে পাইপ লাইনের মাধ্যমে জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ করা যাবে।

এর আগে ২০০৪ সালে বাপেক্স কুমিল্লার মুরাদনগরের শ্রীকাইলে নতুন একটি গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কার করে। বর্তমানে সেখান থেকে সফলভাবে গ্যাস উত্তোলন করছে বাপেক্স। এখান থেকে নতুন কূপটি ছয় কিলোমিটার দূরে, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে। নতুন কূপটির নাম দেওয়া হয়েছে শ্রীকাইল পূর্ব-১।