সর্বনিম্ন তাপমাত্রা পঞ্চগড়ে ৭ দশমিক ৫

0
1

পঞ্চগড় প্রতিনিধি

উত্তরের জনপদ পঞ্চগড়ে মাঝারি পর্যায়ের শৈত্যপ্রবাহ অব্যাহত রয়েছে। সোমবার সকালে সর্বনিম্ন ৭ ডিগ্রি ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করেছে তেঁতুলিয়া আবহাওয়া অফিস।

রোববার দেশের সর্বনিম্ন ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে কুড়িগ্রামের রাজারহাট ও পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়। শনিবার রাজারহাটে ছিল ৬ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

চলতি মৌসুমের এ শৈত্যপ্রবাহ শুক্রবার থেকে শুরু হয়। সেদিন দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল তেঁতুলিয়ায় ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। বড় এলাকা জুড়ে তাপমাত্রা নেমে ৮ থেকে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে চলে এলে আবহাওয়াবিদরা তাকে বলেন মৃদু শৈপ্রবাহ; থার্মোমিটারের পারদ ৬ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে নেমে এলে তাকে মাঝারি ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৪ থেকে ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে হলে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে বলে ধরা হয়।

সোমবার সকাল থেকে পঞ্চগড়ে কুয়াশা কমে যায়। সূর্যের আলো ছড়িয়ে পড়ে চারদিক। কিন্তু উত্তরের হিমেল বাতাসের কারণে কনকনে ঠাণ্ডা অনুভূত হয়।

চারদিন ধরে টানা শৈত্যপ্রবাহে বেড়েছে শীতজনিত রোগের প্রকোপ। বিশেষ করে বয়স্ক ও শিশুরা সর্দি, কাশি, ডায়েরিয়াসহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. সিরাজউদ্দৌলা পলিন বলেন, প্রতি বছর শীতকালে শিশু ও বয়স্কদের মধ্যে সর্দি, কাশি, নিউমেনিয়া ও ডায়েরিয়া রোগের প্রকোপ দেখা দেয়। এবারও এর ব্যতিক্রম ঘটেনি। এবার শীতজনিত নানা সমস্যায় রোগী ভর্তির সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছ। এছাড়া হাসপাতালের বহিঃবিভাগে অসংখ্য শীতজনিত রোগী প্রতিদিন চিকিৎসা সেবা নিচ্ছেন।