সেলফিতে মগ্ন বন্ধুরা; আবিরের মৃত্যুর দৃশ্য ছবিতে

0
176

যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজের ছাত্র আহসান আবির। বন্ধুদের সাথে শিক্ষা সফরে গিয়েছিল শিলাইদহে রবীন্দ্র কুঠিবাড়িতে। কে জানতো এ সফরই হবে তার জীবনের শেষ সফর। সেখানে গিয়ে পদ্মা নদীতে গোসল করতে নামে সবাই। আর গোসলের মাঝে স্মৃতি ধরে রাখার জন্য সেলফি তুলতে সবাই ব্যস্ত। ঠিক তখনই বন্ধু আবির পানিতে ডুবে যাচ্ছিলো। সেই দৃশ্য ধরা ও পরে তাদের সেলফিতে। কিন্তু সেসময় আবিরের দিকে নজর যায়নি বন্ধুদের। পানিতে ডুবে বন্ধুদের সামনেই মারা যায় আবির।

নিহত আহসান আবিরের বন্ধু পলাশ আহমেদ বলেন, আমরা সবাই রবীন্দ্রনাথের কুঠিবাড়ি ঘুরে পদ্মার চরে যাই। সবাই যখন পানিতে খেলছিলাম, তখনই হঠাৎ পানিতে ডুবে যায় আবির। কিছুক্ষণ পরে বালুর চরে গেলে আবিরের খোঁজ হয়। তখন পানিতে খেলা করার সময় যে সেলফি তোলা হয় সেটি দেখে বোঝা যায় আমরা যখন সেলফি তুলছিলাম বন্ধু আবির তখন ডুবে যাচ্ছিল।

যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজের সহকারী অধ্যাপক তবিবুর রহমান জানান, সোমবার সকালে যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজ থেকে ১৩১ জন শিক্ষার্থী ও ৯ জন শিক্ষক শিক্ষাসফরে শিলাইদহে রবীন্দ্র কুঠিবাড়িতে যান। সেখানে যাওয়ার আগেই শিক্ষার্থীদের বলা হয়েছিল একা একা কোথাও যাওয়া যাবে না এবং নদীতে যাওয়া যাবে না। কিন্তু কয়েকজন নিষেধ অমান্য করে পদ্মা নদীতে চলে যায়। দুপুর দেড়টার দিকে ১৯ জন শিক্ষার্থী সেখানে গোসল করতে পানিতে নেমেছিল। কিছুক্ষণের মধ্যেই আবির পানিতে ডুবে যায়।

সহপাঠীরা আবিরকে খুঁজে না পেয়ে বিষয়টি শিক্ষকদের জানায়। পরে কুমারখালী ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স স্টেশনের কর্মকর্তাদের খবর দিলে জাল টেনে এবং ডুব দিয়ে খোঁজাখুঁজি করে। কিন্তু শিক্ষার্থীর সন্ধান পাওয়া যায়নি। পরে খুলনা থেকে উদ্ধারকারী ডুবুরি দলের সদস্যরা এলে তাদের সহযোগিতায় রাত ৯টার দিকে আবিরের লাশ পাওয়া যায়।

নিহত আবিরের গ্রামের বাড়ি ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর উপজেলার সাবদালপুর গ্রামে।